কে এই পলাশ?

২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

আমাদের সোনারগাঁও প্রতিনিধি জানান, ২০১১ সালের দিকে স্থানীয় তাহেরপুর ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসা থেকে দাখিল পাস করেন পলাশ। পরে সোনারগাঁও ডিগ্রি কলেজে একাদশ শ্রেণিতে ভর্তি হলেও এক পর্যায়ে পড়াশোনা বন্ধ করে দেন।

পলাশকে নিজের অবাধ্য সন্তান দাবি করে বাবা পিয়ার জাহান বলেন, আমি ১৯৯০ সাল থেকে বিদেশে থাকতাম। প্রথমে কুয়েত এবং পরে সৌদি আরবে ছিলাম দীর্ঘদিন। পলাশ আমার চার ছেলে-মেয়ের মধ্যে দ্বিতীয়। আমার পাঠানো টাকা নিয়ে পলাশ উশৃঙ্খল জীবনযাপন করত। একটা সময় সে বাসা ছেড়ে ঢাকায় চলে যায়। এর মধ্যে নাচ-গান থেকে শুরু করে চলচ্চিত্রে জড়িয়ে পড়ে। এ সময় ‘কবর’ নামে একটি নাটক তৈরি ও বেশ কয়েকটি গানের অডিও ক্যাসেটও বের করে। এমনিতে পলাশ বাড়িতে তেমন আসত না। শুধু টাকার প্রয়োজন হলেই বাড়িতে আসত। ফেসবুকের মাধ্যমে জেনেছি, আমার ছেলের সঙ্গে নায়িকা সিমলার বিয়ে হয়েছে। সিমলাকে নিয়ে সে কয়েকবার আমাদের বাড়িতেও এসেছিল। সিমলা ছিল তার দ্বিতীয় স্ত্রী।

এর আগে ২০১৪ সালে বগুড়া সদর উপজেলার সাতমাথা ভাই পাগলা মাজারের পাশে মেঘলা নামের এক মেয়েকে পলাশ বিয়ে করেছিল। সেখানে তার আয়ান নামে এক ছেলে রয়েছে। বিয়ের এক বছর পর মেঘলার সঙ্গে তার ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। মুদি দোকান দিয়ে জীবিকানির্বাহ করা পলাশের বাবা আরও বলেন, ২০-২৫ দিন আগে আমার ছেলে হঠাৎ বাড়িতে আসে। এ সময় তার মধ্যে দেখা দেয় পরিবর্তন।

নিয়মিত মসজিদে যাতায়াত ও পাঁচ ওয়াক্ত নামাজও শুরু করে, এমনকি আজানও দিয়েছে। গত শুক্রবার দুবাই যাওয়ার কথা বলে সে বাসা থেকে বেড়িয়ে যায়। এদিকে আমাদের বগুড়া অফিসের নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, পলাশের আগের স্ত্রী নুসরাত জাহান মেঘলা দাবি করেছেন, তার সাবেক স্বামী একজন ছদ্মবেশী প্রতারক।

তিনি জানান, তার বাবা আইনজীবী এবং মা সাবেক সরকারি কর্মকর্তা। ২০১৩ সালে অনার্স পড়ার সময় ফেসবুকে পলাশের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। মাত্র ৬ মাসের পরিচয়ে বাবা-মায়ের অমতে পালিয়ে তিনি পলাশকে বিয়ে করেছিলেন। পলাশ বলেছিল তার বাবা বিদেশে থাকেন। তাদের ঢাকায় বাড়ি রয়েছে। সেখানেই মেঘলাকে রাখবে; কিন্তু পালিয়ে ঢাকায় গিয়ে বিয়ের পর মেঘলাকে নিয়ে যাওয়া হয় নারায়ণগঞ্জের বাড়িতে।

মেঘলা জানান, শুরুতেই পলাশের খামখেয়ালিপনা তার কাছে ধরা পড়ে। তার বাউ-েলে স্বভাব এবং বাজে খরচের বিষয়টি জানার পরও তিনি চেষ্টা করেছিলেন পলাশকে সুপথে ফিরিয়ে আনতে; কিন্তুু পলাশ এবং তার বাবা-মায়ের লোভ ছিল শ^শুরবাড়ির টাকার প্রতি। এ জন্য তাকে নির্যাতন করা হতো। ফলে তার সঙ্গে তিন মাসের বেশি সংসার করতে পারেননি। এরমধ্যে পলাশের অনেক অনৈতিক সম্পর্কের বিষয় জানা যায়। ২০১৭ সালের প্রথম দিকে তাদের ছেলে আয়ানের জন্ম হয়। ওই সময় বগুড়ায় সর্বশেষ এসেছিল পলাশ। ছেলে হওয়ার সংবাদ পেয়ে পলাশ এবং তার বাবা-মা টাকা দেওয়ার জন্য আমার পরিবারের ওপর আরও বেশি চাপ দিতে থাকে। মানসিক নির্যাতন সইতে না পেরে ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি মেঘলা আত্মহত্যার চেষ্টা করেছিলেন; কিন্তু পরিবারের সদস্যদের সহায়তায় সে যাত্রায় বেঁচে যায়। ২০১৮ সালের শুরুর দিকে নিজের ফেসবুকে পলাশ চিত্রনায়িকা সিমলাকে বিয়ে করার সংবাদ দেয়। এর পর গত মার্চে পলাশকে মেঘলা ডিভোর্স দেয়।

Share and Enjoy

  • Facebook
  • Twitter
  • Delicious
  • LinkedIn
  • StumbleUpon
  • Add to favorites
  • Email
  • RSS





Related News

  • এক নজরে এসএসসি-সমমানের ফলাফলের পরিসংখ্যান
  • এই সময়ে ঘুরে আসুন বাংলাদেশের ‘কাশ্মির’
  • কে এই পলাশ?
  • ফেনীর ৬ উপজেলা পরিষদ নির্বাচন ৩১ মার্চ
  • সৌদি আরবের যুবরাজ মোহাম্মদ বিন সালমান।
  • (Untitled)
  • শ্রেষ্ঠ পুলিশ সুপার হারুন অর রশীদ
  • নির্বাচনী কাজে অবহেলার অভিযোগে ডিসি-এডিসি ও চার ওসি প্রত্যাহার
  • Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
    Email
    Print