পরশুরামে মডেল কিন্ডার গার্ডেনের প্রধান শিক্ষক শাহাদাতের নারী কেলেংকারী

নিজাম উদ্দিন
২৫ সেপ্টেম্বর:-
পরশুরাম মডেল কিন্ডার গার্ডেনের প্রধান শিক্ষক শাহাদাত হোসেনের বিরুদ্বে স্কুলের শিক্ষার্থীদের ১৭ জন নারী অভিভাবকের সাথে আপত্তিকর ছবি উদ্বার করেছে বিচারকরা। যাদের বেশীর ভাগ প্রবাসীর স্ত্রী। তাদের বেশীর ভাগের শিক্ষার্থী ওই মডেল কিন্ডার গাটেনে পড়ালেখা করতো।

শাহাদাত হোসেন বাসায় গিয়ে প্রাইভেট পড়ানো এবং স্কুলের বিভিন্ন সুযোগ সুবিধা দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে এবং কি শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার বিষয় তদারকি করার অজুহাতে প্রবাসী স্ত্রীরদের সাথে সম্পর্ক গড়ে তুলেছে এবং পরে শারিরীক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে।

গত মঙ্গলবার পরশুরাম বাজারের হাসপাতাল রোড সংলগ্ন সেলিমের মালিকানাধীন সাহাদাতের ভাড়া বাসায় তল্লাসী চালিয়ে পরশুরাম পৌরসভার মেয়র মো নিজাম উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী সজল ও কাউন্সিলর মো লিটন সহ স্তানীয় জনপ্রতিনিধিরা প্রায় ৪০টি সিমকার্ড উদ্বার করে। এই সময় ১০টি চেক বই, একটি কম্পিউটার, পেনড্রাইব, বেশ কিছু মেমোরিকার্ড উদ্বার করে।
যাতে ওই সব নারীদের সাথে আপত্তিকর ছবি সংরক্ষন ছিল।
পরদিন বুধবার পরশুরাম থানার ওসি মো শওকত আলী এবং ওসি তদন্ত মো খালেদ এর কাছে উদ্বার কৃত অশ্লিল ছবি সহ সব কিছু তুলে দেয়া হয় মেয়রের নেতৃত্বে।
বিষয়টি ধরা পরার পর শাহাদাত হোসেন গত বুধবার থেকে পরশুরাম ছেড়ে আত্বগোপনে চলে যায়।
শাহাদাত হোসেন ওই সব নারীদের সাথে আপত্তিকর অবস্থায় সেলফি তুলে এবং ফেসবুক ও ইমুর মাধ্যমে বিভিন্ন ম্যাসেজ আদান প্রদান করে তা নিজের পারর্সনাল কম্পিউটারে সংরক্ষনে রাখে, পরে ওই সব ছবি দিয়ে পরশুরামের সুন্দরী নারীদের বিভিন্ন ভাবে ব্লেকমেইল করা শুরু করে।
পৌর এলাকার জৈনেক সৌদি প্রবাসীর স্ত্রী ও তার কন্যা সন্তানের সাথে অনৈতিক সম্পর্কে জড়িয়ে পড়ে শাহাদাত। প্রবাসীর স্ত্রীর উপহার দেয়া মোটর সাইকেলের পিছনে বসিয়ে ওই স্কুল চাত্রীকে ৬ষ্ট থেকে দশম শ্রেনী পর্যন্ত পরশুরাম বালিকা বিদ্যালয়ে আনা নেয়া করতো। স্কুলের শিক্ষকরা আপত্তি জানালে উল্টো শাহাদাত শিক্ষকদের কে ভয়ভীতি দেখাতো। এবং তার কাছ থেকে ১০/১২ লাখ টাকা হাতিয়ে নেওয়ায় তার অভিভাবকরা বিষয়টি স্থানীয় কাউন্সিলর সহ একাধিক জনপ্রতিনিধিদের কাছে নালিশ দেন। পরে তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে গেলে একে একে প্রকাশ পায় শাহাদাতের নারী কেলেংকারীর বিশাল কাহীনি।
শাহাদাতের কাছে পরশুরামের এনসিসি, ইসলামী ব্যাংক, লিবার্টি কিন্ডার গার্ডেন, বাড়ীর মালিক সেলিম সহ বেশ কয়েকজনে প্রায় ১০ লাখ টাকা পাওনা রয়েছে বলে মেয়র সাহেবের কাছে অভিযোগ দিয়েছেন।

মো শাহাদাত হোসেন পরশুরাম বইমেলা চাকুরী করতো পরে কিন্ডার গার্ডেন দিয়ে স্থানীয় কয়েকজন আওয়ামীীগের বড় বড় নেতার সাথে সুসম্পর্ক গড়ে তুলে। তার পর বিভিন্ন ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খুলে বর্তমানে সে পলাতক রয়েছে।

পরশুরাম কলেজ রোডের তাজু মিয়া কন্ডাক্টরের বাসায় অবস্থিত মডেল কিন্ডার গার্ডেনের এক মালিক জানান শাহাদাত শিক্ষকতার নামে ছাত্রের মায়েদের সাথে সম্পর্ক গড়ে পরে অনৈতিক কর্মকান্ডের প্রমান পাওয়া গেছে। বিচারকরা তাদেরকে পুলিশের উপস্থিতিতে আপত্তিকর ছবি দেখালে তারা লজ্জিত হন। তার জন্য স্কুলের ভাবমুর্তি ক্ষুর্ন হয়েছে তাকে স্কুল থেকে বহিস্কারের চেষ্টা চলছে।
শাহাদাত হোসেন এর বাড়ী নোয়াখালীর সেনবাগে, সে বই মেলা চাকুরী করার সময় পরশুরাম উপজেলা ছাত্রশিবিরের সভাপতি ছিলেন।

Share and Enjoy

  • Facebook
  • Twitter
  • Delicious
  • LinkedIn
  • StumbleUpon
  • Add to favorites
  • Email
  • RSS





Related News

  • ফেনীর জেড ইউ মডেল হাসপাতালে প্রসূতির মূত্যু
  • পরশুরাম ক্লিনিক কে ৫ হাজার টাকা জরিমানা
  • পরশুরামে ২৬টি পুকুরে ৩২১ কেজি পোনা মাছ অবমুক্ত
  • পরশুরাম পোষ্ট অফিসের ডিপিএসের টাকা তুলতে হয়রানি
  • ফুলগাজী-পরশুরামের মুহুরী-কহুয়া বেড়ী বাঁধ ভেঙ্গে ৮ গ্রাম প্লাবিত
  • ফেনীতে জিপিএ ৫ বেড়েছে
  • ক্ষমা চাইছি, অতিরিক্ত লাভে বিক্রি করব না গ্র্যান্ড হক টাওয়ারের দোকানদার
  • হাত জোড় করে ক্ষমা চাইছি, অতিরিক্ত লাভে  বিক্রি করব না’ ফেনী শহরের গ্র্যান্ড হক টাওয়ারের মায়াবি কালেকশনের মালিক
  • Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
    Email
    Print