বঙ্গবন্ধু-বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্ণামেন্টে টানা ৭ বার চ্যাম্পিয়ন পরশুরামের বাউরপাথর প্রাথমিক বিদ্যালয়

পরশুরামের একেবারেই প্রত্যন্ত অঞ্চল। যেখানে বেশীরভাগ মানুষ এখনো দারিদ্রসীমার নিচে বসবাস করছে সে অবহেলিত বঞ্চিত গ্রামের। সোনার মেয়েরা বারবার বিজয় ছিনিয়ে এনে। পরশুরাম তথা ফেনীর ভাবমূর্তি উজ্জ্বল করলেও তাদের দেয়া হয়নি কোন প্রশিক্ষন। নেই কোন সহযোগিতা তবুও বারবার তারা জিতেই চলছে এ যেন এক অলোকিক প্রতিভার জোরেই জিতে চলছে। এই গল্প পরশুরামের বাউরপাথর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ক্ষুদে শিক্ষার্থীদের কথা। যারা বঙ্গবন্ধু-বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে অংশ নিয়ে পরপর ৭ বারই উপজেলা পর্যায়ে অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। বিষ্ময়কর মেয়েদের সাফল্য। শুধু পরশুরাম উপজেলা সীমাবদ্ধ নয়, পরপর জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে ইর্ষনীয় সাফল্য অর্জন করেছে এ স্কুলের মেয়েরা।
বঙ্গবন্ধু-বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেসা মুজিব গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টে শুরু হয় ২০১১ সালে। উপজেলা পর্যায়ে ২০১১, ২০১২, ২০১৩, ২০১৪, ২০১৫, ২০১৬ ও ২০১৭ পর্যন্ত অপরাজিত চ্যাম্পিয়ন বাউরপাথর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মেয়েরা। তাদেরকে কেউ রুখতে পারেনি। তাদের পায়ের যাদুর খেলা শুধু গ্রামের নয় অপলক দৃষ্টিতে তাকিয়ে ছিল চট্টগ্রামের হাজারো দর্শক। এছাড়াও বাউরপাথর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় ফেনী জেলায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ২০১৪ ও ২০১৬ তে দুইবার। ফেনী জেলাতে রানার্স আপ হয়েছেন ২০১১, ২০১৩ ও ২০১৫ তে পরপর তিনবার। এছাড়াও ২০১২ সালে ফেনী জেলা ফাইনালিষ্ট হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে।
২০১৪ চট্টগ্রাম বিভাগীয় পর্যায়ে রানার্স আপ এবং ২০১৬ তে বিভাগীয় কোয়ার্টার ফাইনালিষ্ট হওয়ার গৌরব অর্জন করেছে প্রত্যন্ত অঞ্চলের ক্ষুদে মেয়েরা। ২০১৪ সালে আলাউদ্দিন আহামেদ চৌধুরী নাসিম চট্টগ্রামের সমুদ্র সৈকতে ক্ষুদে খেলোয়াড়দের বিনোদনের ব্যবস্থা করেছিলেন।
পরশুরামে পর পর ৭ বার চ্যাম্পিয়ন এবং জেলা ২ বার চ্যাম্পিয়ন হয়ে বিভাগীয় পর্যায়ে রানার্স আপ হয়ে চট্টগ্রাম বিভাগে সাড়া ফেলে দিয়েছে পরশুরামের মেয়ে ফুটবলাররা। তাদের ইর্ষনীয় সাফল্য দেখে উপজেলা শিক্ষা অফিসের কর্মকর্তা উপজেলা শিক্ষক সহ বিভিন্ন ক্রিড়ামোদিরা তাদের সাফল্য ধরে রাখতে উপজেলা ও জেলা ক্রীড়া সংস্থ্যার উদ্যোগে প্রশিক্ষনের দাবি জানিয়েছেন। কিন্তু তাদেরকে এখন পর্যন্ত উপজেলা ক্রীড়া সংস্থা ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার পক্ষ থেকে কোন ধরনের প্রশিক্ষন কিংবা আর্থিক সহযোগিতা দেয়া হয়নি। তাদের খেলার বল কিনতে হয়েছে শিক্ষকের সহযোগিতা নতুবা নিজেদের টাকা দিয়ে।
জানা গেছে, বিষ্ময়কর বালিকাগুলোর বেশীরভাগ পরিবারগুলো দারিদ্রতার কষাঘাতে জর্জরিত। যাদের নুন আনতে পানতা ফুরায়। ক্ষুদে খেলোয়াড়দের পিতাদের কেউ শ্রমিক, রিকশাচালক, কেউ দিনমজুর আর কেউবা বর্গাচাষী।
গত ২৩ মে অনুষ্ঠিত ফাইনাল খেলায় পরশুরামে ৫১টি স্কুলকে ডিঙ্গিয়ে চ্যাম্পিয়ন অপ্রতিরোদ্ধ চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।
খেলোয়াড় কুলসুমা আক্তার, শিউলী, শাকিলা, জান্নাতুল ফেরদাউস. ফারহানা, জাহানারা, রাবেয়া, মুন্নি, আয়েশা, ফারজানা, শান্তা জানান, তারা জাতীয়ভাবে চ্যাম্পিয়ান হওয়ার লক্ষে এখন প্রস্তুতি নিচ্ছেন। তারা জানান, উপযুক্ত প্রশিক্ষন এবং পর্যাপ্ত সহযোগিতা পেলে তারা জাতীয় ভাবে চ্যাম্পিয়ান হওয়ার গৌরব অর্জন সহজ হবে।
স্কুল পরিচালনা কমিটি জানায়, পরশুরাম উপজেলা চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন মজুমদার, পৌরসভার মেয়র নিজাম উদ্দিন চৌধুরী সাজেল জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে খেলার সময় গাড়ী ভাড়া সহ যাবতীয় খরচ বহন করেন।
স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর খোরশেদ আলম জানান, তাদের পরিবারের দু’মুঠো ভাত যোগাড় করতেই বাবা-মা হিমশিম খায়। পাশাপাশি লেখাপড়ার খরচ চালানো ও খেলোয়াড় হিসেবে বাড়তি খাবার খাওয়ানো ও যতœ নেয়া সম্ভব হয় না। তবুও তাদের ভিতরে রয়েছে বিস্ময়কর প্রতিভা পর্যাপ্ত সহযোগিতা পেলে তারা জাতীয়ভাবে চ্যাম্পিয়ন হতে পারে বলে তিনি আশাবাদি।
বাউর পাথর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আহসান উল্যাহ জানান, যেসব মেয়েরা ভালো খেলছে তাদেরকে আরো যতœ নেয়া প্রয়োজন। নিয়মিত উন্নত প্রশিক্ষণ দিলে জাতীয় পর্যায়ে চ্যাম্পিয়ান হওয়ার যোগ্যতা অর্জন করবে বলে তার বিশ্বাস।

Share and Enjoy

  • Facebook
  • Twitter
  • Delicious
  • LinkedIn
  • StumbleUpon
  • Add to favorites
  • Email
  • RSS





Related News

  • ফ্রান্সই বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন
  • বড় দলগুলো যে কারণে ছিটকে পড়ল
  • চ্যাম্পিয়ন জার্মানির বিদায়
  • টাঙ্গাইলের সখীপুরে ব্রাজিলের পতাকা টাঙাতে গিয়ে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট
  • বিশ্বকাপ থেকে বাদ ইতালি
  • বঙ্গবন্ধু-বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্ণামেন্টে টানা ৭ বার চ্যাম্পিয়ন পরশুরামের বাউরপাথর প্রাথমিক বিদ্যালয়
  • ব্যাডমিন্টন ফেডারেশনের নির্বাচনে বাহার বিনাপ্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত
  • বিকেএসপিতে তামিম-সুবাস
  • Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
    Email
    Print