বিলোনিয়া ইমিগ্রেশন চেক পোষ্টের পুলিশের বিরুদ্বে ভারতীয় নাগরিককে হয়রানির অভিযোগ !

১৮ জুন ২০১৯

পরশুরামে বিলোনিয়া ইমিগ্রেশন চেক পোষ্টে ভারতীয় যাত্রীকে হয়রানির অভিযোগ করেছেন ভারতীয় দুই নাগরিক।
বিলোনিয়ার (মুহুরী ঘাট) দিয়ে গত ২ জুন ভারতে যাওয়ার সময় তাদের কাছ থেকে ভারতীয় ২২ হাজার ৫০০ রুপি হাতিয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে বাংলাদেশী পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্বে। তবে বিলোনিয়া চেক পোষ্টের পুলিশ কর্মকর্তা বিষয়টি অস্বীকার করে বলেন নিয়ম অনুযায়ী সবকিছু করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে কোন টাকা রাখা হয়নি। তাদের কাছে নিয়ম বর্হিভুত ভাবে লুকিয়ে রাখা ৩০ হাজার ভারতীয় রুপি পাওয়া গেছে।

ক্ষতিগ্রস্ত ভারতীয় নাগরিক বিষয়টি ভারত সীমান্তের উপারে ভারতীয় কাস্টমস কর্মকর্তাদের কে অবহিত করেন এবং বিলোনিয়া সাংবাদিক দের কাছে বাংলাদেশের ইমিগ্রেশন চেক পোষ্টের দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা এস আই সুজায়েত আলি মাহমুদ এর বিরুদ্বে অভিযোগ দেন। বিষয়টি ভারতীয় শুল্ক ষ্ট্রেশনের কর্মকর্তা, ইমিগ্রেশন চেক পোষ্টের কর্মকর্তারা ফেনীর পুলিশ সুপারের অবহিত করেন।

জানা গেছে ভারতীর পশ্চিম বঙ্গের নদীয়া জেলার মদন পুরের নারায়ন দাস গত ১৪ মে তার স্ত্রী স্বপ্না দাসকে নিয়ে পাসপোট ও ভিসার মাধ্যমে শুশুর বাড়ীতে যাবার উদ্যেশে বিলোনিয়ার মুহুরী ঘাট দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেন। এবং ২ জুন পুনরায় ভারতে ফেরত যান।
ভারতে যাবার সময় ইমিগ্রেশন চেক পোষ্টের দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা তার কাছে থাকা ভারতীয় রুপি নিয়ে যাওয়া যাবেনা বলে ২২ হাজার ৫০০টাকা রেখে দেন। এতে ইমিগ্রেশন চেক পোষ্টের কর্মকর্তা ও বিএসএফের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়।

বিলোনিয়া ইমিগ্রেশন চেক পোষ্টের অফিস ইনচার্জ সুজায়েত আলি মাহমুদ জানান ভারতীয় ওই যাত্রীদের দেহ তল্লাশী করে ৩০ হাজার ভারতীয় রুপি উদ্বার করা হয়। সুজায়েত আলি জানান নিয়ম অনুযায়ী যাত্রীরা শুধু মাত্র ৫ হাজার ডলার নিতে পারবেন।
অপরদিকে সুজায়েত আলি আরো জানান ভারতীয় পুলিশ প্রশাসনের অভিযোগের পেক্ষিতে ফেনীর পুলিশ সুপার তাকে ডেকে পাঠান, তিনি ফেনীর পুলিশ সুপারকে পুরা বিষয়টি অবহিত করেছেন।

বিলোনিয়া স্থলবন্দরের শুল্ক ষ্টেশানের দায়িত্বরত এস আই মো ইব্রাহিম খলিল জানান পুলিশ শুধুমাত্র পাসপোট এবং ভিসার যাচাই বাচাই করতে পারবে। কাউকে তল্লাসী কিংবা কোন যাত্রীকে সন্দেহ হলে বিজিবি , শুল্ক ষ্ট্রেশান কর্মকর্তা, ইমিগ্রেশন পুলিশ যৌথ ভাবে ট্রাস্কফোর্স গঠন করে তল্লাসী করার নিয়ম রয়েছে।

বাংলাদেশী একাধিক যাত্রীদের অভিযোগ থেকে জানা যায়, বিলোনিয়া শুল্ক ষ্ট্রেশান ও পুলিশ ইমিগ্রেশন চেকপোষ্টে যাত্রীদেরকে বিভিন্ন অজুহাতে হয়রানি করা হয়।

প্রতিদিন এই মুহুরী ঘাট এলাকা দিয়ে গড়ে ৩০/৩৫ জন যাত্রী যাতায়াত করে। গত মাসে ৩ লাখ ৭৩ হাজার ৫ শ টাকা ভ্রমন কর আদায় করা হয়েছে।

Share and Enjoy

  • Facebook
  • Twitter
  • Delicious
  • LinkedIn
  • StumbleUpon
  • Add to favorites
  • Email
  • RSS





Related News

  • আমিনুল করিম খোকা মিয়া ছিলেন সৎ আদর্শবান একজন পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ
  • বিলোনিয়া ইমিগ্রেশন চেক পোষ্টের পুলিশের বিরুদ্বে ভারতীয় নাগরিককে হয়রানির অভিযোগ !
  • পরশুরামে পাইলট হাইস্কুলের ছাত্র শুভ হত্যার অভিযোগে চারজনের যাবতজীবন
  • পরশুরামে পুলিশি হয়রানী বন্ধের প্রতিবাদে সিএনজি শ্রমিকদের সড়ক অবরোধ
  • পরশুরামে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে সাতটি প্রতিষ্ঠানের জরিমানা আদায়
  • পরশুরামের কু্ঁড়েঘর ফাউন্ডেশন অসহায় মানুষের পাশে দাড়ায়
  • পরশুরামে প্রতিতী সমিতির নামে টাকা আত্বসাত করায় প্রতারক মিজানের বিরুদ্বে গ্রাহকদের অভিযোগ
  • পরশুরামে এসএসসি পরীক্ষায় পাসের হার ৭৯.৮০, জিপিএ- ৫ পেয়েছে ২৯ জন
  • Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
    Email
    Print