পরশুরামের মেয়র সাজেল চৌধুরীর খামারে কোরবানীর জন্য প্রস্তুত আড়াই কোটি টাকার দেশী গরু


আবু ইউসুফ মিন্টু :
কেউবা দারিদ্র বিমোচনের জন্য আবার কেউবা বেকরত্ব ঘুচিয়ে স্বাবলম্বি হতে খামার গড়ে তুলেন। কিন্তু নিতান্তই শখের বশে গড়ে তোলা খামার যেমন অনুকরনীয় দৃষ্টান্ত তেমনই উজ্জল সম্ভবনাময় স্থাপন করেছেন পরশুরাম পৌরসভার মেয়র নিজাম উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী সাজেল।
উপজেলা প্রশাসন ও প্রানী সম্পদ কর্মকর্তাদের মতে, মেয়র সাজেল চৌধুরী জেলায় বানিজ্যিকভাবে সবচেয়ে বড় গরুর খামার করে প্রশংসনীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন। উপজেলায় বর্তমানে ৫০টি সহ বিভিন্ন স্থানে ছোট-বড় খামার থাকলেও জেলার সবচেয়ে বৃহৎ গরুর খামার গড়ে তুলেছেন সাজেল চৌধুরী। তার খামারে বর্তমানে রয়েছে প্রায় আড়াইশ গরু। যাহা শুধুমাত্র কোরবানীর ঈদে বিক্রির উদ্যেশ্যে প্রস্তুত করা হচ্ছে। যার সম্ভাব্য বাজার দর হিসাবে লক্ষমাত্রা ধরা হয়েছে প্রায় দুই থেকে আড়াই কোটি টাকা। এছাড়াও সাজেল চৌধুরী খামারে গত ছয় মাসে ৫ শতাধিক গরু বিক্রি করেছেন। সাজেল চৌধুরীর গরুর খামার এলাকায় ব্যাপক পরিচিত লাভ করায় স্থানীয় ভাবে গরুর চাহিদা পুরন হচ্ছে। তাছাড়া ফুলগাজী, ছাগলনাইয়া, ফেনী সহ আশপাশের এলাকার লোকজনও তার খামার থেকে গরু কিনতে ছুটে যাচ্ছেন।
সাজেল চৌধুরী জানান, প্রথমে নওগা থেকে গরুর খামার পরিচালনার কাজে অভিজ্ঞ ৪/৫ জনকে নিয়োগ দিয়েছিলেন। এখন স্থানীয় ৫/৬ জন তার গরুর খামারে কাজ করছেন। ওই খামারের গরু সংগ্রহ করেছেন নওগাঁর শাহপাড় এলাকা থেকে। সাজেল চৌধুরী বিশাল পরিসরের গরু খামার পরিদর্শন করেছেন স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা সহ বিভিন্ন শ্রেনী-প্রেশার লোকজন। তার গরুর খামার দেখে ভুয়সী প্রশংসা করেছেন। পরশুরাম উপজেলার পৌর এলাকার গুথুমা গ্রামে সাজেল চৌধুরী নিজস্ব জমিতে ওই গরুর খামারটি গড়ে তুলেছেন। এছাড়া তিনি বর্তমানে উপজেলার প্রায় ৫০টি পুকুর লিজ নিয়ে মাছ চাষ করছেন। তার পুকুরে রুই, কাতল, বোয়াল, পাঙ্গাস, কই, শিং, মাগুর সহ বিভিন্ন দেশী জাতের মাছের চাষ করছেন। গত দুই বছর ধরে সাজেল চৌধুরী উপজেলার শ্রেষ্ঠ মৎস্য চাষী হিসাবে পুরস্কৃত হয়েছেন। মাছ চাষ ও গরুর খামারে স্থানীয় বেশ কিছু বেকার যুককের কর্মসংস্থনানের সুযোগ সৃষ্টি হয়েছে।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো: রুহুল আমীন জানান, সাজেল চৌধুরীর খামার বানিজ্যিকভাবে সফল হয়েছে। তার খামার দেখে অনেকে খামার করতে উৎসাহী হবেন।
উপজেলা প্রানী সম্পদ কর্মকর্তা জানান, সম্পূন্ন দেশীয় পদ্ধতিতে মেয়রের খামারে গরু মোটা তাজাকরন করা হচ্ছে। এ খামারে কোন ধরনের ইনজেকশন দেয়া হয়না। প্রানী সম্পদ হাসপাতাল থেকে নিয়মিতভাবে তদারকি করা হয়।
খামারের মালিক নিজাম উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী সাজেল জানান, গত দুই বছর ধরে গরুর খামার দিয়ে বানিজ্যিকভাবে লাভবান হয়েছেন। তার খামারে বর্তমানে প্রায় আড়াইশ গরু রয়েছে। আসন্ন কোরবানির ঈদেই তার গরুগুলো বিক্রি করা হবে। ভবিষ্যতে একটি বড় আকারের ডেইরী খামার করার পরিকল্পনা রয়েছে বলে তিনি জানান।

Share and Enjoy

  • Facebook
  • Twitter
  • Delicious
  • LinkedIn
  • StumbleUpon
  • Add to favorites
  • Email
  • RSS





Related News

  • পরশুরামে এসএসসি পরীক্ষায় পাসের হার ৭৯.৮০, জিপিএ- ৫ পেয়েছে ২৯ জন
  • পরশুরাম পৌর এলাকার চুরির ঘটনা থেকে রেহাই পেতে এলাকাবাসীর খোলা চিঠি
  • ফেনী-পরশুরাম সড়কে বাঁক সোজাকরনের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের দাবী
  • পরশুরাম উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে নজরুল একাডেমির শিল্পীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ
  • নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যার প্রতিবাদে পরশুরাম পূজা উদযাপন পরিষদের মানববন্ধন অনুষ্ঠিত
  • পরশুরামে স্ত্রীর আপত্তিকর ভিডিও করে হুমকি, স্বামী কারাগারে
  • পরশুরামে সংখ্যালঘু নারীকে ধর্ষন চেষ্টার অভিযোগে জসিম গ্রেফতার
  • পরশুরাম বিআরডিবি র বার্ষিক সাধারণ সভা অনুষ্ঠিত
  • Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    Facebook Auto Publish Powered By : XYZScripts.com
    Email
    Print